টেক নিউজ

OPPO দেখাচ্ছে একেক পর এক নতুন চমক !

OPPO উন্মোচন করল তাদের নিজস্ব মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম ColorOS 11. ফিচার থাকছে যা যা!

এন্ড্রোয়েড ১১ এর উপর ভিত্তি করে তাল মিলিয়ে অবশেষে চাইনিজ ব্র‍্যান্ড OPPO নিয়ে আসল ColorOS 11 । হুট করেই এরকম জাম্প দেখে টেক লাভাররা পুলকিত কারণ সরাসরি 7.2 থেকে 11 ! ভাবা যায়! চাইনিজ এই প্রতিষ্ঠানটি আরো জানায়, নতুন এই ব্র‍্যান্ডিং এর সাহায্যে একজন ব্যবহারকারী খুব সহজেই জানতে পারবে তার ফোনটি কোন এন্ড্রোয়েড ভার্সন দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। “Make Life Flow” কন্সেপ্টকে কাজে লাগিয়ে OPPO দাবি করছে,

ColorOS 11 একজন ব্যবহারকারীকে স্টক এন্ড্রোয়েড এর অনুভূতি দিবে।

ইউ আই (UI) কাস্টমাইজেশনস

ColorOS 11 এ Android এর UI কে আরও স্মুথ করা হয়েছে, সাথে আরও কিছু কাস্টমাইজ করার অপশন যুক্ত হয়েছে।।

একজন ব্যবহারকারী যেমনি থার্ড পার্টি প্যাক ইউজ করতে পারবে ঠিক তেমনি কাস্টম স্টাইল ও চুস করতে পারবে যেমনটা MIUI 12 তেও আছে।

Oppo ColorOS 11 UI Customization
UI Customization – Oppo ColorOS 11

শাওমি এবং হুয়াওয়ে এর এন্ড্রোয়েড স্কিনের মত OPPO এর ColorOS 11 তে ও একজন ইউজার তা নিজের পছন্দের কালার চুস করতে পারবে। মজার বিষয় হচ্ছে একজন ব্যবহারকারী চাইলে নিজেই ফোন রিংটোন ক্রিয়েট করে ফেলতে পারবে।

চাইনিজ এই ব্রান্ডটি নিজস্ব কাস্টমাইজেশনের বিষয়টি যুক্ত করেছে তাদের ডিভাইসগুলোতে। যেমনটা করেছিল OnePlus এবং Pixel তাদের ফোনগুলায়।

২০১৯ সালে, OPPO বিশ্ববিখ্যাত ডিজাইনদের দিয়ে প্রায় ৩০ টি ওয়ালপেপার তৈরি করে। এই বছর Beauty of Science এর সাথে যুক্ত হয়েছে এটি যার সাহায্যে অতি সহজেই মাইক্রোস্কোপ, ম্যাক্রো এবং টাইম লেপস এর বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ওয়ালপেপার পাওয়া যাবে।

আরও পড়ুনঃ Huawei শীঘ্রই বাজারে আনবে HarmonyOS 2.0

OPPO রিল্যাক্স ২.০ (Relax 2.0)

OPPO Relax পরিচিত লাভ করে ColorOs 7 এ এসে। ColorOs 11 তে এসে এটির নতুন ভার্সনে নতুন কিছু ফিচার ও অ্যাড হয়েছে উদাহরণ হিসেবে বলা যায় সাউন্ড মিক্স যেটি দিয়ে অতি সহজেই বিভিন্ন ধরনের সাউন্ড শুনতে পারে যেমন ন্যাচারাল, শহুরে গ্রামে এবং নিত্যদিনে যেই শব্দ আমাদের কানে লাগে এবং শুনতেও ভাল লাগে।

একজন ব্যবহারকারী বিভিন্ন শহরের(টোকিও,ব্যাংকক) শব্দও শুনতে পারবে OPPO Relax 2.0 দ্বারা।

থ্রি ফিংগার ট্রান্সলেট

থ্রি-ফিংগার দিয়ে স্ক্রিনশট তোলার জন্য ColorOS খুব জনপ্রিয় যা কিনা এখন অন্যান্য অনেক ফোনের অপারেটিং সিস্টেমেও পাওয়া যায়। ColorOS 7 এ কোম্পানিটি এই ফিচারটিকে আপগ্রেড করার চেষ্টা করেছে যা কিনা কার্যকারি ভূমিকা পালন করেছে ব্যবহারকারীদের জন্য।

ColorOS 11 এ OPPO গুগলের সাথে মিলে ট্রান্সলেট(অনুবাদ) ফাংশনালিটি বৃদ্ধি করছে যা কিনা গুগল লেন্স দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে যেটাকে তারা নাম দিয়েছে “থ্রি ফিংগার ট্রান্সলেট”। এই ফিচাররের সাহায্যে একজন ব্যবহারকারী স্ক্রিনশট তুলে সেই কন্টেন্টগুলার অনুবাদ দেখতে পাবে।

প্রাইভেট সিস্টেম

Samsung এর AltZLife ফিচারটি যা ইউজ করা হয়েছিল Galaxy A51 এবং Galaxy A71 তে, সেরকম ফিচারযুক্ত প্রাইভেট সিস্টেম ইউজ করা হবে ColorOS 11 তেও। এই ফিচারের সাহায্যে ব্যবহারকারী তাদের বর্তমান সিস্টেমকে হ্যাক হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারবেন ফিংগারপ্রিন্ট বা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে।

অ্যাপ এবং ডাটা গুলোতে বর্তমান সিস্টেম কিংবা প্রাইভেট সিস্টেম যেকোনটাতেই ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে ব্যবহারকারীর। এমনকি এই অপশন তৈরি করার সময় ইউজার তার নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী অ্যাপ বাছাই করতে পারবে। যদি তারা এটা ভুলেও যায় তখন তারা তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী বাকি স্পেস গুলোতে যেকোন অ্যাপ ইন্সটল করে নিতে পারবে।

ColorOS 11 Private System
ColorOS 11 Private System

মজার বিষয় হচ্ছে, ব্যবহারকারী দুইটি সিস্টেমেই নোটিফিকেশন অন করে রাখতে পারবে এমন সুবিধাও যুক্ত করেছে চাইনিজ এই ব্র‍্যান্ডটি।যেকোন সময় যেকোম জায়গায় ইন্সটল থাকুক না কেন এটির মাধ্যমে একজন ব্যবহারকারী দুইটি আলাদা সিস্টেমের ই নোটিফিকেশন পাবে যা কিনা একটি চমকচার ফিচার ও বটে।

পারফরমেন্সের উন্নতি

হাই-রিফ্রেশ রেট যুক্ত ডিসপ্লে স্মুথলি ইউজের জন্য OPPO তাদের UI তে প্রথমভাবের মত 2.0 প্রোভাইড করবে। এই টেকনোলোজির সাহায্যে ৪৫% র‍্যাম মুক্ত হবে , ৩২% রেস্পন্স রেটের উন্নতি ঘটবে এবং ফ্রেম রেটের স্ট্যাবিলি ১৭% বৃদ্ধি পাবে।

অপরদিকে হাইপার বুস্ট ৩.০ ব্যাটারি কন্ট্রোল করবে যেন ব্যবহারকারীর কাছে পারফরমেন্স এর ঘাটতি মনে না হয়। এই টেকনোলোজিতে স্মার্ট রিসোর্স এলোকেশন ইউজ করা হয়েছে যা ৩০% পর্যন্ত CPU খালি করতে সক্ষম।

ColorOS-11-Super-Power-Saving-Mode-1
ColorOS-11-Super-Power-Saving-Mode

ব্যাটারি সংক্রান্ত ফিচারস

সুপার পাওয়ার সেভিং মোডের সাহায্যে ব্যাটারির সেরা ব্যবহার হবে। OPPO এর দাবি “৫% ব্যাটারি থাকা সত্ত্বেও ব্যবহারকারী অনায়াসেই ৯০ মিনিট পর্যন্ত WhatsApp এ মেসেজ আদান প্রদান করতে পারবে।”

যেখানে ব্যাটারি গার্ড ব্যাটারির হেলথ মেইনটেইন করতে পারবে। যারা রাতে ফোন চার্জ দিয়ে ঘুমিয়ে যায় তাদের জন্য এই ফিচারটি দারুণ কাজে আসবে কেননা ৮০% পর্যন্ত চার্জ হয়ে গেলে এটি অটোমেটিক চার্জ নেওয়া বন্ধ করে দিব! দারুণ না ফিচারটা?

OPPO এর Open Platform

ColorOS 11 এর সাহায্যে এখন ব্যবহারকারী খুব সহজেই এখন থেকে যেকোন থার্ড পার্টি অ্যাপ এর সাহায্যে Video HDR ব্যবহার কর‍তে পারবে।

ColorOS 11 লঞ্চ

ColorOS 11 এর বেটা ভার্সন ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে ভারত,ইন্দোনেশিয়া,থাইল্যান্ড এবং অন্যান্য ওপেন মার্কেট রিজন গুলোয় রিলিজ হয়ে গেছে। পুর্ব ইউরোপের এটি নভেম্বর নাগাদ পাওয়া যাবে এবং পশ্চিম ইউরোপে এই বছরের ডিসেম্বরে লঞ্চ হবে ColorOS 11।

এই সময়কালগুলো ১ম ব্যাচের ডিভাইসগুলোর জন্য প্রযোজ্য। আর লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে শুধুমাত্র বেটা ভার্সন বর্তমানে রিলিজ হয়েছে। স্ট্যাবল ভার্সন বের হতে আরো কিছু সময়ের প্রয়োজন পড়বে এমনটাই জানিয়েছে চাইনিজ ব্র‍্যান্ডটি।

কেমন লাগল ColorOS 11 এর ফিচারগুলা? জানিয়ে দিন কমেন্টে এবং শেয়ার করে দিন বন্ধুদের সাথে !

আরও পড়ুনঃ POCO M2,পোকো বাজারে নিয়ে এলো তাদের মিডরেঞ্জ বাজেটের নতুন ফোন!

Abid Hasan

আমি আবিদ হাসান , একজন বাংলাদেশি বালক, চাই নিজেই কিছু করতে । আমি লিখতে ভালবাসি তার পাশাপাশি শিখতে এবং শেখাতে ।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button